আইনের চোখে অভ্র ও অন্য কিছু বাংলা সফটওয়্যারের পাইরেসি – মোস্তাফা জব্বার (দৈনিক সংবাদ)

শিরোনামঃ আইনের চোখে অভ্র ও অন্য কিছু বাংলা সফটওয়্যারের পাইরেসি

লেখকঃ মোস্তাফা জব্বার

তারিখঃ ২৩ এপ্রিল, ২০১০

ইউনিকোডে রূপান্তরঃ এস এম মাহবুব মুর্শেদ

ইউনিকোড কনভার্সন টুলঃ http://bnwebtools.sourceforge.net/

লিংকঃ
http://www.bijoyekushe.net/html/news042404.html [বিজয়]
http://www.sachalayatan.com/mukit_tohoku/31714 [ইউনিকোড]

কপিরাইট: মোস্তাফা জব্বার

শুধুমাত্র ইউনিকোডে সংরক্ষণের উদ্দেশ্যে অবিকৃত অবস্থায় কপি করা হয়েছে।

লেখাঃ

আইনের চোখে অভ্র ও অন্য কিছু বাংলা সফটওয়্যারের পাইরেসি
মোস্তাফা জব্বার

সাম্প্রতিককালে ইন্টারনেটের ডিজিটাল পাতাগুলো একটি বিতর্কে গরম হয়ে গেছে। সেটি হচ্ছে অভ্র কি বিজয়-এর পাইরেটেড সংস্করণ কিনা। এটি নিয়ে লেখালেখি হয়েছে অনেক। বক্তব্য এবং পাল্টা বক্তব্যও প্রকাশিত হয়েছে অনেক। বিশেষ করে আমাকে উদ্দেশ্য করে প্রচুর গালাগালি, অশ্লীল মন্তব্য, হুমকি, অপপ্রচার এসব অনেক হয়েছে। এটি অবশ্য একেবারে নতুন নয়। অতীতে মেধাস্বত্ত্বের পক্ষে বলতে গিয়ে এর চাইতেও খারাপ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। আমার বিরুদ্ধে একটি মানহানির মামলার কথা আমি অবলীলায় স্মরণ করতে পারি।

এবার যেসব কথা বলা হয়েছে বা হচ্ছে তার প্রায় পুরোটাই হচ্ছে আবেগতাড়িত এবং ‘চিলে কান নিয়ে গেছে’ টাইপের মন্তব্য। একদল লোকতো আমাকে রীতিমতো বাংলা ভাষার শত্রুতে পরিণত করারও চেষ্টা করেছে। অবশ্য তাদের একজন নায়কও আছে-তার নাম মেহেদি হাসান খান। এখন তিনি বাংলা ভাষার ত্রাণকর্তা। কেউ কেউ তার পক্ষে ভাষা হোক মুক্ত এমন শ্লোগান দিয়ে মাঠ গরম করে ফেলার চেষ্টা করেছে। বিজয় মুর্দাবাদ এবং অভ্র জিন্দাবাদ এমন শ্লোগানসম্পন্ন প্রফাইল ছবি বা মোস্তাফা জব্বারের গায়ে শিশুর কাপড় দিয়ে তাতে ভাষা হোক মুক্ত শ্লোগান দেয়া অথবা মোস্তাফা জব্বারের ছবি দিয়ে টাকার নোট বানানো বা ”আমরা করবো বিজয় একদিন” এমন কার্টুন ইন্টারনেটে অনেক দেখেছি। বাংলা ব্লগ লেখার সাইটগুলোতে মোস্তাফা জব্বারকে ডিজিটাল কানমলা দিতে হবে এমন মন্তব্যতো অহরহই করা হচ্ছে। কেউ কেউ যে এর প্রতিবাদ করছে না তা নয়। কিন্তু ব্যাপারটা বিচিত্রার সেই প্রচ্ছদ কাহিনীটার মতো। ৭২ সালে দেশে গণপিটুনির জোয়ার বইছিলো। বিচিত্রা খোজে বের করেছিলো যে, একজন তরতাজা তরুণকে বিণা অপরাধে জীবন দিতে হয়েছিলো। আমি এই ডিজিটাল যুগে তেমন একটি ডিজিটাল গণপিটুনির শিকার। তাতে অবশ্য আমার আপত্তি নেই। কারণ আমার নিজের বিবেকটা খুব পরিষ্কার। আমি কি বলছি আর কি করছি সেটিও পরিষ্কার। অন্যের ধার করা কথা বা কাজ কোনটাই আমার নিজের জন্য প্রযোজ্য নয়। আমি যা বলি বা যা করি তা বুঝে শুনেই করি।

ইতিমধ্যেই অভ্র বিষয়টি নিয়ে আমার বেশ কটি লেখা ছাপা হয়েছে। কিন্তু একটিতেই আমি এর পেছনের আইনগত বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করিনি। অন্য কেউ করেছেন, সেটিও আমার চোখে পড়েনি। আমার অন্তত চোখে পড়েনি। আমি যেসব বক্তব্য দিয়েছি তাতেও আইনের উল্লেখ করা হয়েছে-কিন্তু আইনের ধারাসমূহে কি লেখা আছে তা কোন সময়ে বলা হয়নি।

কিছুটা সময় পাবার ফলে আমি দেখতে পেয়েছি যে অভ্র কেবলমাত্র বিজয়-এর কপিরাইট লঙ্ঘন করেনি। এটি বিজয়-এর ট্রেডমার্ক এবং প্যাটেন্টও লঙ্ঘন করেছে। তবে এই পুরো কাজটাই করা হয়েছে বিজয়-এর কীবোর্ড লেআউট নকল করে, বিজয় এর নামের সাথে বিভ্রান্তিমূলক নাম যুক্ত করে এবং বিজয় এর বাংলা লেখার পদ্ধতি নকল করে। তবে এরকম মেধাস্বত্ত্ব ল্ঘংন কেবল অভ্র করেনি। লেখনী, প্রশিকা, প্রবর্তন, ফাল্গুনসহ বাংলা লেখার অনেক সফটওয়্যারই এই কাজটি করেছে। প্রথমে আলোচনা করা যায় বিজয়-এর কপিরাইট নিয়ে।
কপিরাইট লঙ্ঘন: “মেহদি হাসান খান বলেন, ইউনিবিজয় আর বিজয় কোনোদিনই এক কীবোর্ড লেআউট ছিলোনা, এখনো নেই। যেখানে একটা কি বা বোতামের পার্থক্য একটা আলাদা লেআউটের জন্ম দেয়, ইউনিবিজয়ের সাথে বিজয়ের অন্তত ৮টি পার্থক্য রয়েছে।” (দৈনিক প্রথম আলো ২৩ এপ্রিল ২০১০)

নীচে অভ্র কীবোর্ডটির একটি ছবি অভ্রর ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করে আমাকে পাঠানো হয়েছে। আসুন দেখি এখানে আসলে কি পার্থক্য আছে। যদিও বলা হচ্ছে যে আটটি পার্থক্য রয়েছে তবুও প্রকৃত পার্থক্য কতোটা? অথবা পার্থক্য নামে আসলে চোখে কি ধুলো দেবার চেষ্টা করা হয়েছে।

এই লেআউটটিতে টিলডে বোতামে ঘঔ নামক যে বোতামটি রয়েছে সেটি নতুন। বাংলা লেখার জন্য এর কোন প্রয়োজন নেই। অভ্র ইউনিকোড নামক পদ্ধতিতে বাংলা লেখার জন্য তথাকথিত এই বোতামটি যুক্ত করেছে। আমরা বিজয়-এ সেটি ছাড়াই বাংলা লিখতে পারি। ফলে এটি কোন পার্থক্য নয়। বাংলা কীবোর্ডের সাথে এই বোতামের কোন সম্পর্ক নেই। একেবারে ওপরের সংখ্যার সারিতে দুই সংখ্যা বোতামের শিফটে চন্দ্রবিন্দু আছে। বিজয়-এ এটি আছে একই সারির সংখ্যা ৭-এর শিফটে। অভ্রতে কপিরাইট এড়িয়ে যাবার জন্য চন্দ্রবিন্দুর বদলে ৭-এর শিফটে নেয়া হয়েছে খ- ত। বাংলা ভাষায় চন্দ্রবিন্দু বা খ- ত-এর ব্যবহার প্রায় নেই বললেই চলে। ত বর্ণের সাথে হসন্ত দিয়ে ৎ লেখা যায়। ফলে এটি কীবোর্ডে না থাকলেও কোন সমস্যা হয়না। ফলে এটিও কোন পার্থক্য নয়। অভ্রতে ৬-এর শিফটে আছে বিসর্গ। বাংলায় বিসর্গের ব্যবহার যে কতোটা সেটিও আমরা জানি। কদাচিৎ এর ব্যবহার হয়। অভ্রতে বিজয়-এ ব্যাক স্লাশ নামক যে বোতামটিতে খ- ত ও বিসর্গ ছিলো সেখানে পেট কাটা ব ও র রাখা হয়েছে। এই দুটি বর্ণ এখন অসমিয়াতে ব্যবহৃত হয়-বাংলায় প্রচলিত নয়। এর বাইরে ইংরেজী এক্স বোতামে ও এবং ৗ চিহ্নের বদলে াে ও ৗে বসানো হয়েছে। এটি একেবারেই অদল বদল নয়। কারণ অভ্রতে ও কার ও ঔ কার লেখার জন্য এটি ব্যবহার করা হয়। লক্ষ্য করুন, এছাড়া ইংরেজী অ থেকে ত পর্যন্ত কোন বোতামে কোন পরিবর্তন নেই। তবুও হিসাবের জন্য যদি অদল বদল ধরা হয় তবে ২, ৬, ৭ ও ব্যাক স্ল্যাশ বোতামের ৫টি পজিশনে তা করা হয়েছে। এগুলো বোতাম নয়-পজিশন। কম্পিউটারের প্রতিটি কীবোর্ডে ১২টি ফাংশন কী ছাড়াও নর্মাল-শিফট, জিআর-শিফট জিআর (অপশন বা শিফট অপশন) এরকম দুই শতাধিক পজিশন আছে। এজন্যই ইলেকশন কমিশন অভ্র সফটওয়্যার দিয়ে বিজয় কীবোর্ড লেআউট ব্যবহার করতে পেরেছে। তারা তাদের ল্যাপটপে ইউএসবি পোর্ট দিয়ে ডেস্কটপ কম্পিউটারের বিজয় কীবোর্ড লেআউট মুদ্রিত কীবোর্ড যুক্ত করে এই কাজটি সম্পন্ন করেছে।

অভ্র কীবোর্ড পর্যালোচনা করলে দেখা যাচ্ছে, বাংলা মূল বর্ণ ৫০টির মাঝে কেবলমাত্র , ৎ, ঃ ও চন্দ্রবিন্দুর স্থান বদল করা হয়েছে। দেখার বিষয় যে, আইনে কি একে গ্রহণযোগ্য পরিবর্তন বলে মনে করা হয়। আইন বলে কপিরাইটের হুবহু বা অংশ বিশেষ পুনরুৎপাদন বা ব্যবহার করলে তা কপিরাইটের লঙ্ঘন হবে।

কপিরাইট আইন ২০০০ (২০০৫ সালে সংশোধিত) অনুসারে, ধারা ২(৮)(ঙ) তে কপিরাইট লঙ্ঘনকারী অনুলিপির সংজ্ঞা হিসেবে বলা হয়েছে, “৩[(ঙ) কম্পিউটার প্রোগ্রামের ক্ষেত্রে, কোন কম্পিউটার প্রোগ্রামের সম্পূর্ণ বা অংশবিশেষের পুনরুৎপাদন বা ব্যবহার।” এই সংজ্ঞায় অত্যন্ত পরিষ্কারভাবে বলা হয়েছে যে, কোন কম্পিউটার প্রোগ্রামের ক্ষেত্রে সেই প্রোগ্রামের সম্পূর্ণ বা অংশ বিশেষ পুনরায় উৎপাদন করলে বা ব্যবহার করলে সেটি কপিরাইট লঙ্ঘনকারী অনুলিপি হবে। এক্ষেত্রে অভ্র বিজয়-এর অংশ বিশেষ পুনরুৎপাদন করছে এবং নির্বাচন কমিশনসহ যারা অভ্র ব্যবহার করছে তারা কপিরাইট লঙ্ঘন করছে। আইনে কম্পিটউটার প্রোগ্রামের সংজ্ঞাও দেয়া আছে। এতে বলা আছে, কম্পিউটার প্রোগ্রাম অর্থ পাঠযোগ্য মাধ্যমে যন্ত্রসহ, শব্দ, সংকেত, পরিলেখ অথবা অন্য কোন আকারে প্রকাশিত নির্দেশাবলী যা দ্বারা কম্পিউটারকে কোন বিশেষ কাজ করানো বা বাস্তবে ফলদায়ক করানো যায়।

খুব সঙ্গত কারণেই আইনানুগভাবে বিজয় কীবোর্ডকে ইউনিবিজয় নামে অভ্র সফটওয়্যারে ব্যবহার করা আইনসঙ্গত নয়। যেহেতু বিজয়-এর কীবোর্ড ও সফটওয়্যার নিবন্ধিত সেহেতু এটি আদালতের সাক্ষ্য হিসেবেও গণ্য হবে। আইনের ধারায় এভাবে তা বলা আছে। “ ধারা ৬০(২) কোন কর্মের কপিরাইটের রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট উক্ত কর্মের কপিরাইট থাকার বিষয়ে পর্যাপ্ত সাক্ষ্য হিসাবে গণ্য হইবে এবং সার্টিফিকেটে যে ব্যক্তিকে কপিরাইটের স্বত্ত্বাধিকারী হিসাবে দেখানো হইয়াছে তিনি ঐরূপ কপিরাইিটের স্বত্ত্বাধিকারী।”

অন্যদিকে অভ্র ছাড়া আর যেসব সফটওয়্যার যেমন লেখনী, প্রশিকা, প্রবর্তন, ফাল্গুন ইত্যাদি কোন পরিবর্তন ছাড়াই বিজয় কীবোর্ড সরাসরি ব্যবহার করেছে। বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল মাত্র তিনটি বোতাম বদল করে একটি জাতীয় কীবোর্ড তৈরী করেছে। এর সবগুলো একেবারে কপিরাইটের লঙ্ঘন। আইনে কম্পিউটার প্রোগ্রামের কপিরাইট লঙ্ঘনের জন্য শাস্তির বিধান এভাবে দেয়া আছে, “ধারা ৮৪, যদি কোন ব্যক্তি- (ক) কোন কম্পিউটার প্রোগ্রাম এর লংঘিত কপি অনুলিপি করিয়া যে কোন মাধ্যমে প্রকাশ, বিক্রয় বা একাধিক কপি বিতরণ করেন তাহা হলে তিনি অনুর্ধ চার বৎসর কিন্তু অনন্যূন ছয় মাসের কারাদ-ে এবং অনূর্ধ চার লক্ষ টাকা কিন্তু অন্যূন এক লক্ষ টাকার অর্থদ-ে দ-িত হইবেন। (খ) কম্পিউটারে কোন লংঘিত কপি ব্যবহার করেন তাহা ইলে তিনি অনুর্ধ তিন লক্ষ টাকা কিন্তু অন্যূন এক লক্ষ টাকার অর্থদ-ে দ-ণীয় হইবেন।” প্রথমোক্ত দফায় যদি অভ্রকে অভিযুক্ত করা যায় তবে দ্বিতীয় দফায় অফিযুক্ত রা যায় ইলেকশন কমিশনকে। আরও একটি দফা আছে যাতে ইউএনডিপিকে অভিযুক্ত করা যায়।

প্যাটেন্ট: : বিজয় এর বাংলা লেখন পদ্ধতির প্যাটেন্ট রয়েছে। এই প্যাটেন্ট অনুসারে বিজয় দিয়ে যেভাবে বাংলা লেখা হয় সেটি নতুন আবিষ্কার হিসেবে গণ্য হয়েছে। প্যাটেন্ট ও ডিজাইন আইনে বলা হয়েছে, 12. (1) A patent sealed with the seal of the Department of Patents, Designs and Trade Marks shall, subject to the other provisions of this Act, confer on the patentee the exclusive privilege of making, selling and using the invention throughout Bangladesh and of authorizing others so to do. এর ফলে বিজয় এ ব্যবহৃত বাংলা লেখনপদ্ধতি অভ্র ব্যবহার করতে পারেনা। যেহেতু অভ্রতে ব্যবহৃত ইউনিবিজয় কীবোর্ড লেআউটে সেই পদ্ধতি ব্যবহৃত হচ্ছে সেহেতু এটি প্যাটেন্ট আইনেরও লঙ্ঘন। বাজারে আগে উল্লেখিত যেসব বাংলা সফটওয়্যার রয়েছে সেগুলোর ক্ষেত্রেও প্যাটেন্ট আইন লঙ্ঘন করার অভিযোগ করা সম্ভব। কারণ, তারা কেবল যে লেআউট নকল করেছে তা নয়-তারা বিজয়-এর বাংলা লেখার পদ্ধতিও নকল করেছে।

এখানে আরও উল্লেখ করা দরকার যে আইনে প্যাটেন্ট বলবৎ হওয়া বিষয়েও বিধান আছে। এতে বলা হয়েছে যে, , (1) An invention may, during the period between the date of an application for a patent therefor and the date of sealing a patent on that application, be used and published without prejudice to that patent, and such protection from the consequences of use and publication is in this Act referred to as provisional protection.
এর অর্থ দাড়াচ্ছে যেদিন বিজয়-এর প্যাটেন্ট অধিকার চাওয়া হয়েছে সেদিন থেকেই প্যাটেন্ট অধিকার রয়েছে। ফলে ২০০৭-০৮ সালের কথা বলে পার পাবার কোন উপায় নেই।

ট্রেডমার্ক: বিজয় একটি ট্রেডমার্ক করা শব্দ। এই সম্পর্কে বিশ্ব মেধাসম্পদ সংস্থার বক্তব্য হচ্ছে: Trademark owners have right to prevent others from using the same or confusingly similar mark but cannot prevent others from making or selling the same good (obviously not yet patented) under a non confusing mark. এখানে ইউনিবিজয় একটি বিভ্রান্তিকর শব্দ যা দিয়ে বিজয়-এর কপিরাইট ও প্যাটেন্ট লঙ্ঘন করার পাশাপাশি ট্রেডমার্কও লঙ্ঘন করা হয়েছে। অন্য সফটওয়্যার নির্মাতারাতো বিভ্রান্তিকর নয়-সরাসরি ট্রেডমার্ক আইন লঙ্ঘন করেছে।
(দৈনিক সংবাদ এর জন্য)

ঢাকা, ২৩ এপ্রিল ২০১০ ॥ লেখক তথ্যপ্রযুক্তিবিদ, কলামিস্ট, দেশের প্রথম ডিজিটাল নিউজ সার্ভিস আবাস-এর চেয়ারম্যান- সাংবাদিক, বিজয় কীবোর্ড ও সফটওয়্যার এবং ডিজিটাল বাংলাদেশ-এর প্রণেতা ॥ ই-মেইল: mustafajabbar@gmail.com, ওয়েবপেজ: http://www.bijoyekushe.net

Advertisements
%d bloggers like this: