অভ্র কি পাইরেটেড? – মোস্তাফা জব্বার (দৈনিক প্রথম আলো)

শিরোনামঃ অভ্র কি পাইরেটেড?

লেখকঃ মোস্তাফা জব্বার

তারিখঃ ২৩ এপ্রিল, ২০১০

ইউনিকোডে রূপান্তরঃ এস এম মাহবুব মুর্শেদ

ইউনিকোড কনভার্সন টুলঃ http://bnwebtools.sourceforge.net/

লিংকঃ
http://www.bijoyekushe.net/html/news042404.html [বিজয়]
http://www.sachalayatan.com/mukit_tohoku/31714 [ইউনিকোড]

কপিরাইট: মোস্তাফা জব্বার

শুধুমাত্র ইউনিকোডে সংরক্ষণের উদ্দেশ্যে অবিকৃত অবস্থায় কপি করা হয়েছে।

লেখাঃ

‘অভ্র পাইরেটেড সফটওয়্যার’—আমার এই মন্তব্যটির একমাত্র কারণ হচ্ছে, এই সফটওয়্যারটিতে ইউনিবিজয় নামের যে কিবোর্ড আছে তার বর্ণ-অংশটি আমার কপিরাইট ও প্যাটেন্টকৃত বিজয় বাংলা কিবোর্ড লে-আউটের সঙ্গে সম্পূর্ণভাবে এক বা হুবহু নকল।

বিজয় কিবোর্ড লে-আউট ১৯৮৯ সাল থেকে কপিরাইট নিবন্ধিত এবং ২০০৪ সালে এর প্যাটেন্ট করা হয়েছে।বিজয় শব্দটিও ক্লাস-৯ শ্রেণীতে ট্রেডমার্ককৃত। এসব ট্রেডমার্ক, কপিরাইট ও প্যাটেন্টসংক্রান্ত সব দলিল যে কেউ আমার কাছে উপস্থিত হলে দেখতে পাবেন। বলে রাখা ভালো, ২০০৫ সালের কপিরাইট আইন, ২০০৯ সালের ট্রেডমার্ক আইন এবং ১৯১১ সালের প্যাটেন্ট আইনসহ আন্তর্জাতিক চুক্তি-কনভেনশন ও রীতি-রেওয়াজ অনুসারে, আমার অনুমতি ছাড়া কেউ এই বিজয় কিবোর্ড লেআউটের সম্পূর্ণ বা অংশবিশেষ কোথাও যুক্ত করতে পারেন না। সুতরাং যিনি বা যাঁরাই তাঁদের সফটওয়্যার বা হার্ডওয়ারে বিজয় কিবোর্ড লেআউট অন্তর্ভুক্ত করবেন, তিনি বা তাঁরাই পাইরেসির দায়ে অভিযুক্ত হবেন। অভ্রকে সেই অভিযোগে অভিযুক্ত করা হয়েছে।

এই অভিযোগের বাইরে অভ্র, ওপেন সোর্স বা ওপেন সোর্স ঘরানার কোনো সফটওয়্যার বা ব্যক্তির বিরুদ্ধে আমার কিছুই বলার নেই, কোনো অভিযোগও নেই। বিজয় আমি তৈরি করেছি, নাকি অন্য কেউ করেছে তার জবাবও এসব প্রত্যয়ন থেকেই জানা যাবে।
কিবোর্ডের লে-আউটের প্যাটেন্ট বা কপিরাইট হয় কি না সেই প্রশ্নের জবাব আমি দেব না, সরকার দেবে। কারণ এগুলো রেজিস্ট্রার অব কপিরাইট এবং রেজিস্ট্রার অব প্যাটেন্ট ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস থেকে দেওয়া হয়েছে। আইন অনুসারে এই প্রত্যয়নের বিরুদ্ধে আপিল করার সময়ও অতিক্রান্ত হয়েছে। বলে রাখা ভালো, বিজয়-এর কপিরাইট হয়েছে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের

আমলে এবং প্যাটেন্ট হয়েছে বেগম খালেদা জিয়ার আমলে। শেখ হাসিনার আগের বা বর্তমান শাসনকালে এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

সুপিরিয়র ইলেকট্রনিকস নামের একটি প্রতিষ্ঠান এ বিষয়ে আমার বিরুদ্ধে মামলা করেছিল এবং আদালত বিজয় কিবোর্ডের কপিরাইট আমার—সেই রায় দিয়েছেন। সুপিরিয়র সেই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেনি এবং প্যাটেন্ট হওয়ার পর জাতীয় রাজস্ব বোর্ডও বিজয় কিবোর্ডের প্যাটেন্ট স্বত্ব বলবত্ করার জন্য নির্দেশ দিয়ে তা বলবত্ করেছে। সুতরাং এটি কোনো বিতর্কের বিষয় নয়। উপরন্তু আমি যদি অভ্রকে পাইরেটেড সফটওয়্যার বলে তার মানহানি করে থাকি তবে আদালতে আমার বিরুদ্ধে সিআরপিসির ৫০০ এবং ৫০১ ধারায় মামলা হতে পারে এবং আমি যদি প্রমাণ করতে না পারি যে, অভ্র বিজয় অন্তর্ভুক্ত করে পাইরেসি করেনি, তবে আমার শাস্তি হবে। এরপর পাঠকেরা নিজেরাই সিদ্ধান্ত নেবেন অভ্র পাইরেটেড কি না।
(দৈনিক প্রথম আলোর জন্য)

ঢাকা, ২৩ এপ্রিল ২০১০ ॥ লেখক তথ্যপ্রযুক্তিবিদ, কলামিস্ট, দেশের প্রথম ডিজিটাল নিউজ সার্ভিস আবাস-এর চেয়ারম্যান- সাংবাদিক, বিজয় কীবোর্ড ও সফটওয়্যার এবং ডিজিটাল বাংলাদেশ-এর প্রণেতা ॥ ই-মেইল: mustafajabbar@gmail.com, ওয়েবপেজ: http://www.bijoyekushe.net

%d bloggers like this: